সিপিও

কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার (সিপিও):

প্রত্যেক থানায় একজন কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার রয়েছেন৷একজন কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার পুলিশি কাজে জনসম্পৃক্ততা নিশ্চিত করার জন্য জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার কাজ করবেন৷ তিনি তার পুলিশী কাজের বাইরেও নিম্নলিখিত কাজগুলো করবেন:-

তিনি তার থানা এলাকা ও জনগণ সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা রাখবেন৷ তিনি পায়ে হেঁটে কিংবা মোটর সাইকেল যোগে তার থানার ভৌগোলিক পরিচিতি ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা সমূহের উপর বিস্তারিত জ্ঞান লাভ করবেন৷ এলাকার মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, আবাসিক কমপ্লেক্স প্রভৃতি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা লাভ করবেন এবং সম্ভাব্য অপরাধপ্রবণ স্থানসমূহ চিহ্নিত করবেন৷ তিনি একটি কমিউনিটির সামগ্রিক প্রোফাইল তৈরি করবেন৷

তিনি নির্দিষ্ট একটি মোবাইল নম্বর সহ থানায় একটি অফিস স্থাপন করবেন৷ তিনি কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমের উপর যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ করবেন৷ বিভিন্ন সময়ে আয়োজিত কমিউনিটি পুলিশিং সভা সমূহের কার্যবিবরণী প্রস্তুত ও সংরক্ষণ করবেন৷

তিনি তার এলাকার বিরাজমান সমস্যা সমূহ চিহ্নিত করবেন এবং তার কারণ যথা সম্ভব লিপিবদ্ধ করবেন৷

তিনি সমাজের সকল স্তরের মানুষ যেমন-নেতৃস্থানীয় ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী, স্থানীয় প্রতিষ্ঠান-প্রধান, স্কুল শিক্ষক, সরকারি কর্মকর্তা ও অন্যান্য প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সাথে ব্যক্তিগত যোগাযোগ রক্ষা করত একটি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলবেন৷  

তিনি স্থানীয় জনগণের সাথে সর্বদা সার্বিক যোগাযোগ রক্ষা করবেন৷ এলাকায় তার বিচরণ হবে সার্বক্ষণিক ও অবাধ৷ তার পূর্ণ পরিচিতি ও ঠিকানা সহ তার সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগের বিষয়ে তিনি সকলকে অবহিত করবেন এবং তার সাথে যোগাযোগের জন্য উৎসাহিত করবেন৷ তিনি সমাজের সমস্যা, শংকা ও ঝুঁকির উৎস সমূহ নিরূপণ করবেন, বিশেষ করে অবহেলিত ও বঞ্চিত মানুষের পাশে এসে দাঁড়াবেন৷

তিনি তার দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে  জনগণকে অবহিত করবেন এবং তিনি কিভাবে কমিউনিটি পুলিশিং সংক্রান্ত তথ্য ও অন্যান্য সংবাদ বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট সমূহের সাথে সমন্বয় করে থাকেন তা ব্যাখ্যা করবেন৷ সর্বোপরি, বাংলাদেশ পুলিশের সেবার মানকে তিনি বর্তমান অবস্থা থেকে জনগণের প্রত্যাশিত পর্যায়ে নিয়ে যেতে প্রয়োজনীয় পরিকল্পনা গ্রহণ ও তার বাস্তবায়নে তৎপর হবেন৷